বাংলাদেশ অ্যাকুয়াকালচার টেকনোলজী ইনোভেশান পাটফর্ম (বিএটিআইপি-বাটিপ) এর সংশিষ্ট সকল পক্ষের ২য় মিটিং

বাংলাদেশ অ্যাকুয়াকালচার টেকনোলজী ইনোভেশান পাটফর্ম (বিএটিআইপি-বাটিপ) এর সংশিষ্ট সকল পক্ষের ২য় মিটিং

তারিখঃ ২১শে সেপ্টম্বর ২০১৭
স্থানঃ ওয়ার্ল্ডফিস এর মিটিং রুম, বনানী, ঢাকা।


বাটিপ এর সংশিষ্ট সকল পক্ষের উপস্থিতিতে (২৪ জন) এর ২য় মিটিং ওয়ার্ল্ডফিস এর মিটিং রুম, বাড়ী ২২/বি, রোড ৮/৭, বক-এফ, বনানী, ঢাকাতে অনুষ্ঠিত হয়। অংশ গ্রহনকারীদের মধ্যে ছিল মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশান (বিএফএফইএ), বাংলাদেশ অ্যাকুয়া প্রোডাক্ট কোম্পানী অ্যাসোসিয়েশান (বাপকা), বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশান (বিটিএফ), সাউথ-ওয়েস্ট অ্যাকুয়কালচার এলায়েন্স নেটওয়ার্ক (সোয়ান), নোওয়াপাড়া তেলাপিয়া হ্যাচারী অ্যাসোসিয়েশান, যশোর কার্প হ্যাচারী অ্যাসোসিয়েশান, ¯স্পেক্ট্রা হেক্সা মেগা ফিড লিঃ, কৃষিবিদ ফিড লিঃ, অ্যাসোসিয়েশান ফর রিয়েলাইজেশান অব বেসিক নিডস্ (আরবান), ফিস আইল্যান্ড লিঃ, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং মাছ ও চিংড়ি চাষী। আলোচনায় প্রথম মিটিং এর সার সংক্ষেপ উত্থাপন করা হয় এবং অদ্যকার মিটিং এর ৪টি কার্যকরী গ্র“প গঠন করা হয়। যেগুলো হলো- ক) উৎপাদন গ্র“প খ) শিক্ষা ও গবেষণা গ্র“প গ) মূল্য সংযোজন, বানিজ্য ও বাজারজাত করণ গ্র“প ঘ) আইন, নীতি ও বিধি-বিধান গ্র“প - কৌশগত নতুন কর্মপন্থা যা বাংলাদেশের মাছ চাষের উনড়বয়নের জন্য ও বাটিপের ভবিষ্যত পরিকল্পনার জন্য প্রয়োজনীয়।

সেশন-১ঃ বাটিপের আহ্বায়ক ডঃ মীজানুর রহমান উপস্থিত সকলকে স্বাগতঃ জানিয়ে নিজ নিজ পরিচয় দিতে বলেন। নিজ পরিচয়ে ওয়ার্ল্ডফিসের কান্ট্রি ডিরেক্টও ডঃ ম্যালকম ডিকসন বলেন ১৯৯৩ সাল থেকে আন্তর্জাতিক উনড়বয়ন বিভাগ ইউকে এর অর্থায়নে (ডিএফ আই ডি-ইউকে, পূর্ব নাম ওডিএ) বাংলাদেশ অ্যাকুয়াকালচার এন্ড ফিসারিজ রিসোর্স ইউনিট (বাফরু) এবং ওয়ার্ল্ডফিসের সম্প্রদায় ভিত্তিক মৎস্য চাষ প্রকল্পের সাথে তার জড়িত থাকার কথা বলেন। ডঃ ম্যালকম বাংলাদেশের মাছ চাষের পরিবর্তনে রুই জাতীয় মাছ চাষে সম্পূরক খাদ্য থেকে বানিজ্যিক খাদ্য দিয়ে স্বাদু পানিতে পাংগাস তেলাপিয়ার নিবীড় চাষ এবং গলদা/বাগদার চাষ সম্পর্কে বলেন। চাষীর উৎপাদনের জন্য খুচরা বিক্রেতা দ্বারা মাছ চাহিদা বিবেচনা করা প্রয়োজন (যেমন ইউরোপের স্যামন চাষীরা করে থাকে), মার্কেট লিংক প্রতিষ্ঠিত করা প্রয়োজন, ইলিশ ধরার ঋতু ও কখন লাভজনক তা বিবেচনা করা প্রয়োজন। তিনি বাটিপ প্রতিনিধিদের ১ম মিটিং এর পর পুনরায় আগমনকে প্রশংসা করেন।

সেশন-২ঃ ডঃ মীজান ১ম মিটিং এর সার সংক্ষেপ ২য় মিটিং এর বিষয়সূচী সংক্ষিপ্তাকারে বলেন। তিনি এর সদস্যদের বাটিপ গঠনের প্রশংসা করেন।

সেশন-৩ঃ কৌশগত গবেষনা ও নতুনত্ব বাংলাদেশের মাছ চাষের জন্য দরকার

অংশগ্রহনকারীদের বক্তব্যঃ

ডঃ গোলাম হোসেন, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশানের (বিটিএফ) সভাপতি বলেন, তেলাপিয়া শিল্পের সম্প্রসারনে বিটিএফ এর ভুমিকা অত্যাধিন। তিনি মৎস্য অধিদপ্তরের নীতি নির্ধারনীতে জড়িত থাকা এবং তেলাপিয়া উৎপাদনে চায়না, ইন্দোনেশিয়া ও মিশরের পরে বাংলাদেশ যে ৪র্থ অবস্থানে তার কথা বলেন। তিনি বাটিপের আÍপ্রকাশের উচছ¡সিত
প্রশংসা করেন এবং জানান যে কার্প ও তেলাপিয়া হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন স্বাদু পানির মাছ এবং তিনি আমাদের ইষৎ লবনাক্ত পানির মাছের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

ডঃ আলমগীর কৃষিবিদ ফিডের ক্লাষ্টার লিডার জানান যে, কৃষিবিদ গ্র“প মাছের হ্যাচারী ও চাষের সাথে জড়িত।

মোঃ মিজানুর রহমান, নোওয়াপাড়া তেলাপিয়া হ্যাচারী সমিতির সভাপতি, উদ্বেগ প্রকাশ করে জানান যে, টেকসই ভাবে ওয়াল্ড ফিসের তেলাপিয়ার ব্র“ড সরবরাহ, তেলাপিয়া রেনু উৎপাদনের ক্ষেত্রে হরমোন ও ইথানলের মান ও মূল্য ইত্যাদি বিবেচনায়, বাটিপের সদস্যদের মান স¤পনড়ব হরমোন ও ইথানল আমদানির ক্ষেত্রে জড়িত থাকার সুযোগের কথা ব্যক্ত করেন।

আলহাজ্জ্ব ফিরোজ খান, মা ফাতিমা ফিস হ্যাচারী, যশোর এবং যশোর কার্প হ্যাচারী সমিতির সভাপতি বলেন, তার সমিতিতে ৩৪ জন সদস্য আছে যারা আগামীতে হ্যাচারী ব্যবসা টিকবে কিনা এ নিয়ে বেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেন। কারন যশোরে হ্যাচারীর সংখ্যা কমে বর্তমানে ৮২ থেকে ৪০ এ নেমে এসেছে। ব্র“ডমজুদ ও তার খাদ্য মান ও হ্যচারীর জন্য বড় বাধা। জনাব ফিরোজ মাছ বাজার থেকে পিটুইটারী গ্রন্থি সংগ্রহের প্রস্তাব দেন যা কিনা গুনগত মান সম্পন্ন রেনু উৎপাদন এর ক্ষেত্রে যশোর হ্যাচারী ব্রান্ডিং নামে পরিচিতি পেতে পারে। তিনি হ্যাচারী আইন এর সংশোধনেরও প্রস্তাব দেন।

মোঃ রইছ উদ্দিন, সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার, স্পেক্ট্রা হেক্সা মেগা ফিড লিঃ। তিনি বলেন যে, তাদের কোম্পানীর সাথে থাইল্যান্ডের নামসাই খামারের যোগাযোগে কার্পের খাদ্য, তেলাপিয়া ও শিং জাতীয় মাছের নার্সারী ও গ্রো কআউট স্টেজের খাদ্যের সমন্বয় আছে।

সুজিত কুমার দাস, কান্ট্রি ম্যানেজার, এএবিটি ইন্ডিয়া। তিনি তার কোম্পানীর রোগ প্রতিরোধী স্বাস্থ্য উপাদান ও প্রোবায়োটিক বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর ২৮টি দেশে ব্যবহার হচ্ছে সে সম্পর্কে বলেন।

মঈন উদ্দিন আহমেদ, টীম লিডার, সোলিডারি সেটওয়ার্ক এশিয়া, বলেন যে তার সংস্থা পৃথিবীর ৫৪টি দেশে কাজ করছে। বাংলাদেশে ২৮ হাজার মাছ চাষীর সাথে, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ও নেদারল্যান্ডের ওয়াগিনিগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে ও তাদের যোগাযোগ আছে।

প্রফেসর ডঃ নাজমুল আহসান, এফ.এম.আর.টি ডিসিপিন, খুলনা ও সোয়ানের সভাপতি মাছ/গলদা চিংড়ি/বাগদা চিংড়ি চাষী সংস্থার উপর ও বাংলাদেশ মৎস্য চাষ শিল্পের ভ্যেলু চেইন এর উপর গুরুত্বারোপ করেন।

মিঃ অনিকেত আলম, সিইও, ফিস আইল্যান্ড লিঃ এর ৪০০ হেক্টরের মাছ ও চিংড়ি খামার আছে । তিনি চাষী সমিতি করার ক্ষেত্রে ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

প্রফেসর ডঃ মোঃ শাহ আলম সরকার, ডীন, স্কুল অব এগ্রিকালচার এন্ড রুরাল ডেভলপমেন্ট, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় বলেন যে, তার বিশ্ববিদ্যালয় মাৎস্য চাষ ও টেকসই মাছ চাষের উপর মাস্টার্স কোর্স চালু করেছে। এই কোর্স সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলিতে করা যাবে। শিক্ষার্থীদের বয়সের কোন বাধা /প্রতিবন্ধকতা ও নাই।

সৈয়দ আরিফুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক, অ্যাসোসিয়েশান ফর রিয়েলাইজেশান অব বেসিক নিডস্ (এআরবিএএন-আরবান) বলেন যে, তার সংস্থা খুলনা ও ময়মনসিংহে মোবাইল এপিকেশানের মাধ্যমে গবেষনা কাজের সাথে জড়িত।

মিঃ হুমায়ুন কবীর, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, আমাম সী ফুড ও ভুতপূর্ব ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশান (বিএফএফইএ) বলেন যে, বাটিপের বানিজ্যিক কমিটিতে তার নিজের যোগদানের ইচ্ছা ব্যক্ত করেন।

মিঃ কামরুজ্জামান হোসেন, মৎস্য অধিদপ্তরের প্রধান ফিসারীজ এক্সটেনশান অফিসার, জোরদিয়ে বলেন যে, মৎস্য অধিদপ্তরকে জাতীয় এই পাটফর্মে জড়িত রাখলে পাটফর্মের দক্ষতা বাড়বে।

মোঃ হাসানুজ্জামান, হেড অব অপারেশান, মেরিডিয়ান এগ্রোইন্ডাস্ট্রি লিঃ বটিপকে সামার্থন করেন এবং এর কার্যμমের সাথে জড়িত থাকতে চান।

মোঃ মাফিজুল ইসলাম, স্বাত্ত্বাধীকারী হযরত ইমাম হোসেন ফিস ফার্ম, কৈ গ্রাম, শম্ভুগঞ্জ, ময়মনসিংহ। তিনি ৭০টি পুকুর (৫৯ একর) দেখাশুনা করেন যার প্রধান প্রধান প্রজাতি কৈ মাছ, কার্প ও তেলাপিয়া। তিনি প্রতিবেশী ১২ জন মাছ চাষীকে কারিগরী সহায়তা দেয়। তিনি বলেন মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত তেলাপিয়ার ভাল দাম পাওয়া যায় যদিও মাছের দাম বিগত কয়েক বছর যাবৎ কমছে। তবে খামারে মাছের দাম ও বাজারে দামের মধ্যে বেশ পার্থক্য রয়েছে। যেমন খামারে দাম ১০০ টাকা হলে বাজারে দাম ১৫০ টাকা। আধিক লাভের আশায় ধান এর মতো মাছকে মজুদ করে রাখা যায় না। তবে স্থানীয় বাজারকে স্থির রাখতে হলে বাংলাদেশের উচিত মাছ (তেলাপিয়া/পাংগাস) রপ্তানী করা।

তারেক সরকার, ফিস টেক-বাংলাদেশ এর পরিচালক ও বাপকার (বাংলাদেশ অ্যাকুয়া প্রোডাক্ট কো¤পানী অ্যাসোসিয়েশান-বাপকা) প্রেসিডেন্ট। তিনি মাছের খাদ্য, খাদ্যেপকরন, প্রোবায়োটিক ইত্যাদির ক্ষেত্রে মান পরীক্ষা ও কঠোর নিয়মের ক্ষেত্রে সহমত পোষন করেন। পুনঃমোড়ক, খারাপ মানের দ্রব্য বাজারজাতকরণ, লেবেল/স্টিকার বদল এগুলি অন্যায় আচরণ। তিনি ইইউ, ইউএসএফডিএ অনুমোদন দ্রব্য বাজারজাতের উপর বেশী গুরুত্বারোপ করেন। বাপকা এক বছরের ও বেশী সময় ধরে কার্যকরী এবং মৎস্য অধিদপ্তরকে সেক্টরের উনড়বতির জন্য সমর্থন করে যাচ্ছে।

মিঃ শামসুল আলম, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশানের জেনারেল সেμেটারী। তিনি এগ্রো-৩ হ্যাচারী ও খামারের স্বাত্ত্বাধীকারী। মিঃ আলম মাছের খাদ্যের উচ্চ মূল্য,পাংগাসের চাহিদা কমে যাওয়া, দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের চেয়ে তুলনামূলক বেশী উৎপাদন খরচ ও খামারের বর্তমান খারাপ অবস্থা স¤পর্কে বর্ণনা করেন। বিশ্ববাজারে প্রতিযোগীতার জন্য প্রযুক্তির নতুনত্বের উপর তিনি গুরুত্ব দেন। আন্তর্জার্তিক বাজার অপেক্ষা স্থানীয় বাজারে পাংগাস ও তেলাপিয়ার উচ্চমূল্যর কারনে ময়মনসিংহ অঞ্চলের ৩ থেকে ৪টি প্রμিয়াজাতকরন কারখানা ভাল কাজ করছে না। উৎপাদন ও খাদ্য নিরাপত্তার জন্য খাদ্যের গুনগত মান ও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। মাছ বাজারজাতকরনে ফড়িয়ারা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে।

বাংলাদেশ মাৎস্যচাষের কৌশলগত গবেষণা ও নতুনত্বের সারসংক্ষেপঃ

  • ঋতু বদলের সাপেক্ষে অভ্যন্তরীন মৎস্য চাহিদা ও তার ব্যবহার স¤পর্কে ধারনা নিয়ে মাছ উৎপাদন পরিকল্পনা।
  • মাছ উৎপাদনের ক্ষেত্রে গুনগত মাৎস্য বীজ উৎপাদনের ঘাটতি।
  • গুনগত মান ও খাদ্যমূল্য, স্বাস্থ্য পন্য ও অন্যান্য উপকরণ এর পরিদর্শন এবং নিয়মনীতি।
  • দ্রুত বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা এবং মুনাফার জন্য ব্র“ড মজুদ প্রদশনী ও জাত উনড়বয়ন ।
  • হ্যাচারী, নার্সারী ও মজুদ পুকুরে রোগ ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার জন্য উনড়বত কলাকৌশল।
  • রোগ নিরুপন এবং উপকরনের মান সহজে পরীক্ষার সুপ্রাপ্যতা ।
  • মাছ চাষের ভেলু চেইনে গুনগত মানের সচেতনতার উনড়বয়ন।
  • মাছের বৃদ্ধিতে চাষী ও খাদ্য সরবরাহকারীদের মধ্যে মতবিরোধ আছে। হ্যাচারী ও চাষীরা খামার পরিচালনা ও অন্যান্য কাজের ক্ষেত্রে খাদ্য সরবরাহকারীদের সমালোচনা ও অবজ্ঞা করে।
  • খাদ্য নিরাপত্তা ইস্যুতে উনড়বত নির্দেশনা দরকার। যেমন বৃদ্ধি সহায়তা, রাসায়নিক দ্রব্য ও ইন্টিবায়োটক এর জন্য কোন কোন ধরনের ঝুকি আছে।
  • পিটুইটারী গ্রন্থি সংগ্রহ ঘরোয়াভাবে উনড়বত ও সহজ হওয়া দরকার, হরমোন খরচ কমানো।
  • মার্কেটিং এ আরো ভাল গবেষনার জন্য বাটিপে মাছ বাজার শাখার প্রতিনিধি অন্তর্ভুক্ত করা ।
  • মান নিয়ন্ত্রন ও আইন করে মাছ চাষের ঔষধ প্রাপ্যতা, বাজারজাতকরন,আন্তর্জার্তিক বাজারে নির্ভরশীলতা।
  • তেলাপিয়া ও পাংগাসের ক্ষেত্রে চাষীদের গুড অ্যাকুয়াকালচার প্রাকটিস মেনে চলা।
  • আইনের সচেতনতা বৃদ্ধি করা দরকার। যেমন, হ্যাচারী আইন, খাদ্য আইন, মান নিয়ন্ত্রন, ঔষধ ব্যবহারের দিক নির্দেশনা, মৎস্য পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রন, মাছ ধরার পর গুনগত মান ইত্যাদি।
  • মৎস্য অধিদপ্তরকে আইন বাস্তবায়নে ও সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য সহায়তা করা ।
  • সমুদ্রে ও উপকুলে মাৎস্য চাষ।
  • দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মাছ বাজার খোঁজা।
  • অল্পদামের বিদ্যুৎ শক্তি যেমন, সৌর শক্তি অথবা হ্যাচারীর ও মজুদ পুকুরের জন্য কৃষির মতো শিল্পরেট হারে বিদ্যুৎ খরচ এর ব্যবস্থা করা।
  • ভুমি কর আইন সংশোধন করা। যেমন মাছ চাষীরা ভুমির খাজনা দেয় শিল্প কর হারে।
  • আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক মাছ চাষকে লোনের ক্ষেত্রে কৃষির আওতায় আনে না।
  • দেশের আভ্যন্তরীন বাজারে খাদ্যোপকরনের সহজপ্রাপ্যতা এবং তার মূল্য তথ্য থাকা।
  • বিশ্ববিদ্যালয় সমুহের মধ্যে মৎস্য শিক্ষার ক্ষেত্রে ছাত্র বিনিময় ব্যবস্থার উনড়বয়ন।

সেশন-৪ঃ বাটিপের কার্যকরী কমিটি গঠনঃ ঘ) আইন-নীতি ও বিধি বিধান গ্র“পঃ

  • মোঃ আলমগীর, ক্লাষ্টার লিডার,কৃষিবিদ গ্র“প।
  • মোঃ তারেক সরকার, সভাপতি বাপকা ও পরিচালক ফিস টেক-বাংলাদেশ।
  • মোঃ কামরুজ্জামান, প্রধান ফিসারীজ এক্সটেনশান অফিসার ,মৎস্য অধিদপ্তর, ঢাকা।
  • মোঃ শামসুল আলম, সাধারণ স¤পাদক, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশান (বিটিএফ)।
  • মঈন উদ্দিন আহমেদ, টীম লিডার, সোলিডারি সেটওয়ার্ক এশিয়া।
  • অন্যান্য সংগঠন এর প্রতিনিধি।
  • মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষনা ইনিষ্টিটিউট, মৎস্য ও পশুস¤পদ মন্ত্রনালয়।

ক) উৎপাদন ও মজুদ গ্র“প (পোনা, খাদ্য, চাষী /মজুদ পুকুর)ঃ

  • মিঃ অনিকেত আলম, সিইও, ফিস আইল্যান্ড লিঃ, দেবহাটা, সাতক্ষীরা।
  • ফিরোজ খান, সভাপতি, যশোর কার্প হ্যাচারী সমিতি এবং মা ফাতিমা ফিস হ্যাচারীর স্বত্ত্বাধীকারী ।
  • মিজানুর রহমান, সভাপতি, নোওয়াপাড়া তেলাপিয়া হ্যাচারী সমিতি, নো ওয়াপাড়া, যশোর।
  • মোঃ শামসুল আলম, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশান (বিটিএফ)।
  • এ.কে.এম. শাহজাহান শাহীন, স্বত্ত্বাধীকারী শাহীন ফিশারীজ, কুমিলা।
  • মোঃ রইছ উদ্দিন, সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার, ¯স্পেক্ট্রা হেক্সা মেগা ফিড লিঃ, ঢাকা।
  • মঈন উদ্দিন আহমেদ, টীম লিডার, সোলিডারি সেটওয়ার্ক এশিয়া।
  • মোঃ হাসানুজ্জামান, হেড অব অপারেশান, মেরিডিয়ান এগ্রোইন্ডাস্ট্রি লিঃ।
  • মৎস্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি।

খ) শিক্ষা ও গবেষণা গ্র“পঃ

  • প্রফেসর ডঃ নাজমুল আহসান, এফ.এম.আর.টি ডিসিপিন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা।
  • প্রফেসর ডঃ মোঃ শাহ আলম সরকার, ডীন, স্কুল অব এগ্রিকালচার এন্ড রুরাল ডেভলপমেন্ট, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
  • ডঃ গোলাম হোসেন, সভাপতি, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশানের (বিটিএফ)।
  • মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষনা ইনিষ্টিটিউট, বাংলাদেশ ফিশারীজ রিসার্স ফোরাম (বি. এফ. আর.এফ),ওয়ার্ল্ড ফিস, আরবান, বাপকা।
  • বিশ্ববিদ্যালয় সমুহ যেমনঃ বি.এ.ইউ, সি.ইউ, কে.ইউ, জাস্ট।
  • এ.কে.এম. নওশাদ আলম, প্রফেসর, মাৎস্য বিজ্ঞান অনুষদ, বি.এ.ইউ, ময়মনসিংহ।
  • ডঃ বিনয় বর্মন, সিনিয়র সাইন্টিস, ওয়ার্ল্ড ফিস।
  • এ.কে.এম. শাহজাহান শাহীন, স্বত্ত্বাধীকারী শাহীন ফিশারীজ, কুমিলা

গ) মূল্য সংযোজন, বাণিজ্য ও বাজারজাতকরণ গ্র“পঃ

  • মিঃ হুমায়ুন কবীর,ব্যবস্থাপনা পরিচালক, আমাম সী ফুড ও ভুতপূর্ব ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশান (বিএফএফইএ)।
  • ফিরোজ খান, সভাপতি, যশোর কার্প হ্যাচারী সমিতি এবং মা ফাতিমা ফিস হ্যাচারীর স্বত্ত্বাধীকারী, যশোর।
  • সুজিত কুমার দাস, কান্ট্রি ম্যানেজার, এএবিটি ইন্ডিয়া।
  • সৈয়দ আরিফুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক, অ্যাসোসিয়েশান ফর রিয়েলাইজেশান অব বেসিক নিডস্ (আরবান)
  • মোঃ তারেক সরকার, সভাপতি বাপকা ও পরিচালক ফিস টেক-বাংলাদেশ।
  • মোঃ শামসুল আলম, সাধারণ স¤পাদক, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশান (বিটিএফ)।
  • মৎস্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি।

ঘ) আইন-নীতি ও বিধি বিধান গ্র“পঃ

  • মোঃ আলমগীর, ক্লাষ্টার লিডার,কৃষিবিদ গ্র“প।
  • মোঃ তারেক সরকার, সভাপতি বাপকা ও পরিচালক ফিস টেক-বাংলাদেশ।
  • মোঃ কামরুজ্জামান, প্রধান ফিসারীজ এক্সটেনশান অফিসার ,মৎস্য অধিদপ্তর, ঢাকা।
  • মোঃ শামসুল আলম, সাধারণ স¤পাদক, বাংলাদেশ তেলাপিয়া ফাউন্ডেশান (বিটিএফ)।
  • মঈন উদ্দিন আহমেদ, টীম লিডার, সোলিডারি সেটওয়ার্ক এশিয়া।
  • অন্যান্য সংগঠন এর প্রতিনিধি।
  • মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষনা ইনিষ্টিটিউট, মৎস্য ও পশুস¤পদ মন্ত্রনালয়।

 

 

Meeting Minutes
Bangladesh Aquaculture Technology innovation platform (BATiP) 2nd stakeholder meeting
Date: September 21, 2017
Venue: WorldFish meeting room, Banani, Dhaka.
___________________________________________________________________________
The second BATiP meeting was held at conference room, WorldFish office, House 22B, Road 8/7, Block - F, Banani, Dhaka, with 24 participants. The participants represented DoF Bangladesh, BFFEA, BAPCA, BTF, SWAAN Noapara Tilapia hatchery association, Jessore carp hatchery association, Spectra Mega Feed limited, Krishibid Feed limited, ARBAN, Fish Island limited, KU, BOU and Fish/shrimp farmers. The discussion included review minutes of the first meeting, formed four working groups - (a) production/ grow out, (b) education and research, (c) value addition, trade and marketing, (d) act, policy and regulations; prioritize strategic research and innovation needs for Bangladesh Aquaculture and progress and future planning of BATiP.

SESSION 1: WELCOME AND INTRODUCTION OF PARTICIPANTS
Dr. Muhammad Meezanur Rahman, convener of BATiP welcomed the participants and requested for self-introduction. As part of self-introduction, Dr. Malcolm Dickson, Country Director of WorldFish delivered his speech describing previous involvement with Bangladesh Aquaculture since 1993, through Department for International Development, UK (DFID UK formerly called ODA) funded project Bangladesh Aquaculture and Fisheries Resource Unit (BAFRU), and community based fisheries development program of WorldFish in Bangladesh. Dr. Malcolm illustrate transformation of Bangladesh aquaculture from supplementary feeding and carp culture to commercial feed based intensive grow out of several freshwater species (e.g. Pangasius, Tilapia) and shrimp/ prawn. Fish farmers require considering the demand of fish by retailers for production (e.g. salmon farmers in Europe), establishing link with market, Hilsa harvest season and profitability. He appreciated the repeated participation of BATiP members after 1st meeting.

SESSION 2: REVIEW OF THE 1ST STAKEHOLDER MEETING
Dr. Meezan reviewed the 1st meeting minutes and briefly the agenda of second meeting. He hailed BATiP formation and its members.

SESSION 3: STRATEGIC RESEARCH AND INNOVATION NEEDS OF BANGLADESH AQUACULTURE
Statements of the participants:
Dr. M. Gulam Hussain, President BTF, expressed the role of BTF in the growth of Tilapia industry, involvement in policy issues with DoF, Bangladesh ranked 4th in Tilapia production after China, Indonesia and Egypt. He highly appreciated BATiP formation and informed that carp and Tilapia are most important freshwater species and stressed the importance of brackish water species in Bangladesh Aquaculture.
Dr. Alamgir, cluster leader of Krishibid feed limited informed Krishibid group involvement in fish hatchery and farming.
Mr. Mijanur Rahman, President, Noapara Tilapia hatchery association expressed concern over sustainable Tilapia brood supply after WorldFish, price and quality of hormone and ethanol for mono sex Tilapia fry production, scope for the involvement of association in importing quality hormone and ethanol for the members of the association.
Mr. Firoz Khan, Owner of Ma Fatima Fish hatchery, Jessore and the president of Jessore carp hatchery association reported thirty four members of the association. The members of the association are concern about the future of fish hatchery business due to declining number of hatcheries at Jessore (declined 82 to 40) contrary to the other area of Bangladesh, broodstock and feed quality are major constraints for the hatchery. Mr. Firoz suggested for the initiative to collect Pituitary gland of fish from the market, quality seed production and branding for the Jessore hatcheries and revise hatchery act of DoF.
Mr. Rais Uddin, Senior General Manager, Spectra- hexa Mega Feed limited specified the collaboration of the company with Namsai Farm, Thailand; feed production of carp, Tilapia and catfish species for nursery and grow out stages.
Sujit Krisna Das, Country Manager AABT India, illustrated marketing of probiotic, prophylactic health products in twenty five countries including Bangladesh by the company.
Moinuddin Ahmed, Team Leader, Solidaridad Network Asia outlined the presence of Solidaridad in 54 countries of the world. Twenty eight thousand fish farmers of Bangladesh and in the network and its collaboration with Khulna Univeristy, Bangladesh and Wageningen University of the Netherlands.
Professor Dr. Nazmul Ahsan, FMRT discipline, Khulna University and president of SWAAN gave expressed the importance of strengthened fish/shrimp/prawn farmer organizations to improve Bangladesh aquaculture industry value chain.
Mr. Oniket Alam, CEO of Fish Island Limited owned four hundred hectares fish/ shrimp farm, represented farmers in BATiP expressed his willingness in strengthen farmer associations.
Professor Dr. Md. Shah Alam Sarker, Dean, School of Agriculture and Rural Development, BOU reported the university offers courses including Masters in Aquaculture and Sustainable Aquaculture. BOU offer the courses mainly in holidays, weekends, have no age bar for the students.
Syed Arifuzzaman, Executive Director, ARBAN reported ARBAN’s involvement in Aquaculture research in Khulna and Mymensingh particularly through mobile application and web portal development.
Mr. Humayun Kabir, Managing Director, Amam Sea Food, Former Director BFFEA expressed interest in joining trade working committee of BATiP.
Mr. Kamruzzaman Hossain, Chief Fisheries Extension Officer of DoF stressed the involvement of DoF in the national platforms to improve efficacy of the platforms in aquaculture sector.
Mr. Md. Hasan Uz-Zaman Head of operations, Meridian Agro Industries Limited expressed kin interest to support and join BATiP activities.
Mr. Mafizul Islam, owner of Hazrat Imam Hossain Fish farm, Koigram, Shambugonj, Mymensingh. Mr. Mafizul operates 70 ponds (50 acres area) producing mainly producing Koi (Anabus), then carp and Tilapia. He does not produce Pangasius. Mofizul provide technical assistance twelve neighbouring fish farmers. Mr. Mofizul reported better Tilapia price during March-May, declining trend of fish price in last few years. It is difficult to hold fish for six months compare to rice in store. As an example, farm gate price is 100 BDT per kg, then market price is 150 BDT per kg. Bangladesh needs to export fish in the world market for improved stabilized local market.
Mr. Tarique Sarker, Director, Fish Tech Limited and President, BAPCA reported importance of quality inspection, strict regulation and compliance in marketing probiotics, feed and feed additives. The malpractices include re packaging, low quality product marketing, replace labels/stickers. He stress the importance of marketing EU, USFDA approved product. BAPCA is active for more than a year and supporting DoF for the improvement of the sector.
Mr. Shamsul Alam, General Secretary, BTF is an owner of agro three hatchery and farm. Mr. Alam described the present difficult situation in fish farming, illustrating increasing fish feed price, less demand of fish (for example Pangasius), relatively higher production cost of Tilapia and Pangasius than other south Asian countries. Technology innovation is important for competetiveness with World market. Three/four fish processing plants in Mymensingh region are not doing well due to higher fish price (Pangasius and Tilapia) in local market than international market. Feed quality is an important issue for production and food safety. Middlemen are playing important role in fish marketing.

SUMMARY OF STRATEGIC RESEARCH AND INNOVATION NEEDS OF BANGLADESH AQUACULTURE

  • Assessment of domestic fish demand and consumption with seasonal variation is required in planning of fish production.
  • Scarcity of quality fish seed production is a barrier in fish production
  • Inspection and regulation of quality and price of feed, health products and other inputs
  • Broodstock domestication, strain development are necessary for better growth, health management and profitability
  • Improved technologies for diseases and health management in the hatcheries, nurseries and grow out
  • Availability and access to the laboratories for disease diagnosis, and inputs quality
  • Improve awareness on quality in the aquaculture value chain
  • Fish feed suppliers and farmers conflict on fish growth. Hatcheries and farmers criticize feed suppliers and undermine the role of husbandry and other factors.
  • Improve application of food safety issues such as the risk associated with growth promoter, chemicals and antibiotics
  • Pituitary gland collection domestically improve availability, reduce expenses for hormone
  • Include market sector representation in BATiP committee for better research in fish marketing
  • Control of quality/ regulation of aquaculture drugs availability, marketing, dependency on international market
  • Good Aquaculture Practice (GAP) by farmers with particular attention to Tilapia and Pangasius
  • Increase awareness on policies including hatchery act, feed act, quality control, aquaculture medicinal product guideline, Fish inspection and quality control, post-harvest quality
  • Support DoF in implementing policies and raise awareness
  • Institutional cooperation and coordination between Universities, DoF, BATiP, BFFEA, BFRI and WorldFish
  • Mariculture, coastal aquaculture (inshore, off shore)
  • Traceability both for domestic and international market
  • Cheaper energy e.g. solar, scope to provide subsidy like as rice production (Fish hatchery and grow out receive electricity as industrial rate contrary to agriculture sector
  • Revise land tax policy, for example fish farmers pay land tax as industrial rate
  • Optimize water usage in fish farmers. (e.g. Mr. Mofizul, Mymensingh, used of water for the second year to reduce electricity cost.
  • Financial institutions/ banks do not treat aquaculture as part of Agriculture
  • Improve availability of feed ingredients and price information in the domestic market
  • promote student for exchange program among the universities

SESSION 4: FORMATION OF BATIP WORKING GROUPS:
POLICY :

  • Mr. Alamgir, Cluster leader Krishibid feed.
  • Mr. Tareq Sarker, President, BAPCA
  • Mr. Kamruzzaman, DoF
  • Mr. Shamsul Alam, General Secretary, BTF
  • Mr. Moin Uddin , Team Leader, Solidaridad net work Asia
  • Representatives of the associations
  • DoF, BFRI, MOFL

PRODUCTION AND GROW OUT (SEED, FEED, FARMER/ GROW OUT)

  • Mr. Oniket Alam, CEO, Fish Island, Debhata, Satkhira
  • Mr. Firoz Khan, President, Carp Hatchery Association, Jessore
  • Mr. Mijanur Rahman, President, Nowapara Tilapia hatchery association
  • Mr. Shamsul Alam, General Secretary, BTF
  • Mr. A.K.M. Shahajahan Shaheen, Owner, Shaheen fisheries, Comilla
  • Mr. Rais Uddin, Senior General Manager, Spectra- hexa Mega feed limited
  • Mr. Moin Uddin , Solidaridad net work Asia
  • Mr. Hasan Uz-Zaman Head of operations, Meridian Agro Industries Limited
  • DoF representative

EDUCATION AND RESEARCH

  • Professor Dr. Nazmul Ahsan, KU and President SWAAN
  • Dr. Md. Shah Alam Sarker, Professor and Dean, BOU
  • Dr. M.G. Hussain, President, BTF
  • BFRI, BFRF, WF, BAPCA, ARBAN, DoF
  • Universities (BAU, CU, KU)
  • Dr. A.K.M. Nawsad Alam, Professor, BAU, Mymensingh
  • Dr. Benoy Barman, Senior scientist, WorldFish, Bangladesh
  • Mr. A. K. M. Shahajahan Shaheen, Comilla

VALUE ADDITION, TRADE AND MARKETING

  • Mr. Humayun Kabir, MD, Amam Sea Food Limited and x president BFFEA.
  • Mr. Firoz Khan, President, Carp Hatchery Association, Jessore
  • Mr. Sujit, AABT India
  • Syed Arifuzzaman, ED, ARBAN
  • Mr. Tareq Sarker, President, BAPCA
  • Mr. Shamsul Alam, General Secretary, BTF
  • DoF representative

SESSION 5: PROGRESS OF BATIP AND FUTURE PLANNING

  • Website development, social media (e.g. facebook)
  • BATiP brochure, leaflet preparation and distribution
  • Identity logo and BATiP registration
  • Sponsorship (Mr. Sujit, Mr. Rais Uddin, Prof. Nazmul Ahsan, BFFEA, associations)
  • Membership category (Life member, Donor member, General member, corporate member, companies, associate member, student member, institutional member).
  • Anybody involved in aquaculture can apply for BATiP membership
  • Registration (Mr. Humayun Kabir of BFFEA, Mr. T. Sarker of BAPCA, Mr. Shamsul Alam, of BTF, Mr. Alamgir of Krishibid feed and Dr. N. Ahsan of SWAAN)

NEXT MEETING IN THE WEEKEND AND REQUESTED FOR FULL DAY !!!

ACRONYMS
ARBAN - Association for Realisation of Basic Needs
BAFRU - Bangladesh Aquaculture and Fisheries Resource Unit
BAPCA - Bangladesh Aqua product companies association
BAU - Bangladesh Agricultural University
BFFEA - Bangladesh Frozen Food Exporters Association
BOU - Bangladesh Open University
BTF - Bangladesh Tilapia Foundation
CU - Chittagong University
DFID - Department for International Development
DoF - Department of Fisheries
EU - European Union
KU - Khulna University
ODA - Overseas Development Administration
SWAAN - Southwest aquaculture advisory network
USFDA - United states Food and Drug Administration

All News